দেখুন বাচ্চাটি কোরআন শরীফ দেখে কেমন করছে , হে আল্লাহ আপনিই ভালো জানেন

ভিডিওটি একদম নিচে ,দেখুন বাচ্চাটি কোরআন শরীফ দেখে কেমন করছে , হে আল্লাহ আপনিই ভালো জানেন কোরআন মানবজাতির উত্থান-পতনের নিয়ামক শক্তি। কোরআনকে ধারণ করলে যে কোনো জাতির উত্থান ঘটতে পারে। আবার কোরআনকে ছেড়ে দিলে যে কোনো জাতির পতন ঘটতে পারে। কথাটি ব্যক্তি এবং জাতির জন্য সমানভাবে প্রযোজ্য। পৃথিবীর ইতিহাস সাক্ষী, এই কোরআনই আরব উপত্যকার মেষপালকদের বিশ্ববিজয়ী জাতির আসনে অধিষ্ঠিত করে দিয়েছিল। নিরক্ষর, ক্রীতদাস,

রাখাল, রাহাজন, মরু যাযাবর, গোত্রীয় কলহে বিধ্বস্ত এবং অজ্ঞতা ও অন্ধকারে নিমজ্জিত বিচ্ছিন্ন জনগোষ্ঠীকে এই কোরআনই শাশ্বত জ্ঞানের জ্যোর্তিময় আলোতে উদ্ভাসিত করেছে। ঈমানের রজ্জুর নিবিড় বন্ধন ঐক্যবদ্ধ করে দিয়েছিল। এদেরকেই আল কোরআন জগেসরা শাসক, দিগ্বিজয়ী সেনাপতি, অসীম সাহসী ন্যায়বিচারক, নির্ভীক দূত, নিবেদিতপ্রাণ দায়ী ইলাল্লাহ এবং নির্যাতিত মানবতার প্রাণের বন্ধু বানিয়ে দিয়েছিল। এদেরই আল কোরআন বিশ্ব সেরা অধ্যাপক, দার্শনিক, বিজ্ঞানী, চিকিত্সক, জ্যোতির্বিজ্ঞানী, ইতিহাসবিদ, হাদিস বিশারদ,কোরআন ব্যাখ্যাতা, প্রকৌশলী ও সমরবিশারদ বানিয়েছিল। এ কোরআন ইতিহাসের রোম সাম্রাজ্য ও পারস্য সাম্রাজ্যের পতন ঘটিয়েছিল। এ কোরআনই পশ্চিমে আফ্রিকার পশ্চিম প্রান্ত রাবাত থেকে পূর্বে ইন্দোনেশিয়া এবং দক্ষিণ সাগরের সমগ্র উপকূল থেকে বরফে ঢাকা উত্তরাঞ্চলীয় দেশগুলোর মানবহৃদয়কে ঈমানের অনাবিল আলোতে উদ্ভাসিত করে দিয়েছিল। সেই আলো ছড়িয়ে পড়ছে সর্বস্থানে। এ কথাই কোরআনে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই এই কোরআন সেই পথ দেখায়, যা সবচেয়ে সঠিক এবং মজবুত।’ (সূরা ইসরা, ১৭:৯)। ভিডিওটি দেখতে নিচে ক্লিক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *