দুই বেঙের এক মজার কাহিনী

একবার এক ষাঁড় এক হ্রদের ধারে গেল, যেখানে অনেক ব্যাঙের ছানা। এক ষাঁড় একটি ব্যাঙকে মাড়িয়ে ফেলে। অন্য ব্যাঙগুলো তখন ঝাঁপ দেয় জলে।

একটি ব্যাঙের বাচ্চা তার মায়ের কাছে গিয়ে বলল, “মাগো মা, আজ আমি এক ভয়ঙ্কর জীব দেখেছি।” মা বলল, “কেমন সে? আমার চেয়েও বড়?” “অনেক অনেক বড়।” বুড়ো ব্যাঙ তখন নিজেকে ফুলিয়ে বলল, “এখন?” “আরও বড়।” মা ব্যাঙ তখন নিজেকে আরও বেশি ফোলাল। “এর থেকেও বড়?” “বড়, তুমি নিজেকে যতই ফোলাও না কেন কখনও তুমি ষাঁড়ের সমান হতে পারবে না।” বুড়ো ব্যাঙ এই কথা শুনে তার সমস্ত শক্তি দিয়ে নিজেকে এত ফোলাতে গেল, যে শেষ পর্যন্ত ফটাস করে ফেটে মারা গেল।
next
একবার ব্যাঙদের মধ্যে ঝগড়া শুরু হল। কেউ-ই আর তার মীমাংসা করতে পারে না। তখন তারা রাজ্যের রাজাকে গিয়ে বলল, “আমাদের একজন রাজা দাও।” এমন সময় হঠাৎ তাদের সরোবরের নিকটবর্তী এক গাছের ডাল ভেঙে পড়ল ওই সরোবরে। “এই আমাদের রাজা!” বলে ছুটে গেল ব্যাঙরা। ডালটি কাদায় মাখামাখি হয়ে সেখানে চুপচাপ পড়ে রইল। ব্যাঙরা সাহস পেয়ে ওই ডালে সাঁতার কেটে তাতে লাফালাফি শুরু করে দিল। কিন্তু ব্যাঙরা দেখল যে তাদের শান্ত রাজা তাদের কিছুই বলছে না। তখন তারা আবার অন্য রাজার জন্য প্রার্থনা করতে লাগল। এমন সময় এক বক সেই সরোবরের উপর দিয়ে উড়ছিল এবং সে সেখানে নামল। ব্যাঙরা খুব খুশি হয়ে বলতে লাগল, “দেখো, দেখো, আমাদের আসল রাজা এসেছেন, এবার যিনি আমাদের সমস্ত কলহের নিষ্পত্তি করে দেবেন।” কিন্তু বক যখন একটা একটা করে ব্যাঙ ধরে খেতে লাগল তখন তারা বুঝল আগের সেই শান্ত ও সাদামাটা রাজাই ছিল ভালো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *