জানেন কি শেষ পর্যন্ত যুলায়খা, হযরত ইউসুফ(আ:)কে বিয়ে করতে পারছিলেন কিনা?

অন্যান্য নবীদের কাহিনী কুরআনের বিভিন্ন স্থানে প্রয়োজন অনুসারে বিক্ষিপ্তভাবে বর্ণিত হয়েছে। কিন্তু ইউসুফ নবীর ঘটনাবলী একত্রে সাজিয়ে একটি সূরাতে সুন্দরভাবে বর্ণিত হয়েছে। সম্ভবতঃ সেকারণে এটিকে أَحْسَنُ الْقَصَصِ ‘সুন্দরতম কাহিনী’ বলা হয়েছে (ইউসুফ ১২/৩)। দ্বিতীয়তঃ এর মধ্যে যেসব ঘটনা বর্ণিত হয়েছে, তা যেমনি অলৌকিক, তেমনি চমকপ্রদ ও শিক্ষণীয়। তৃতীয়তঃ অন্যান্য নবীদের কাহিনীতে প্রধানতঃ উম্মতের অবাধ্যতা ও পরিণামে তাদের উপরে আপতিত গযবের কাহিনী এবং অন্যান্য উপদেশ ও হিকমত সমূহ প্রাধান্য পেয়েছে। কিন্তু ইউসুফ (আঃ)-এর কাহিনীতে রয়েছে দুনিয়ার তিক্ত বাস্তবতা এবং আল্লাহর উপরে অকুণ্ঠ নির্ভরতার সমন্বয়ে সৃষ্ট এক অতুলনীয় ও অভাবনীয় এক ট্রাজিক জীবন নাট্য। যা পাঠ করলে যেকোন বোদ্ধা পাঠকের জীবনে সৃষ্টি হবে সর্বাবস্থায় আল্লাহর উপরে ভরসা ও তাঁর নিকটে আত্মসমর্পণের এক অনুপম উদ্দীপনা।

আমাদের কে একজন প্রশ্ন করেছে ” শেষ পর্যন্ত যুলায়খার কার সাথে বিবাহ হয়েছিল”,ইউসুফ (আঃ) এর বিবাহ বিষয়ে পবিত্র কুরআন বা হাদীছ থেকে কিছু জানা যায় না। তবে ঐতিহাসিক ও মুফাসসিরগণ বিচ্ছিন্ন সনদে উল্লেখ করেছেন যে, যুলায়খার স্বামী ক্বিৎফীরের মৃত্যুর পর এবং সে তওবাহ করার পর ইউসুফ (আঃ)-এর সাথে তার বিয়ে হয়েছিল এবং দু’টি ছেলে সন্তান হয়েছিল (তাফসীরে ইবনু আবী হাতিম ৮/৩৯০, নং ১২৫৭৬; তাফসীরে ত্বাবারী ১৬/১৫১; আদ-দুররুল মানছূর ৪/৫৫৩; আল-বিদায়াহ ওয়ান-নিহায়াহ ১/১৯৬-১৯৭)
আবার অনেকে আছে যারা বলে দাড়িতে কোন দিন ক্ষুর লাগাবে না তাদের জন্য জান্নাতে ইউসুফ আ. এর বিয়ের দাওয়াত দেওয়া হবে।তাদের জন্য বলতে চাই ভাই, এই হাদীসটির কোন সনদ নেই, ভিত্তিও নেই। আল্লাম আব্দুল মালেক সাহেব লিখেছেন, এই হাদীসটি জাল। এছাড়াা সকল হক্কানী ওলামায়ে কেরামই এই হাদীসটি জাল হবার ব্যাপারে একমত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *