ওমরাহ হজ শেষে ইমাম হাসান (আ.) বাড়ি ফিরছিলেন (অলৌকিক ইসলামীক ঘটনা)

হযরত হারুন (আ.)’র প্রথম পুত্র ‘শাবার’ নামের অনুকরণে মহান আল্লাহর নির্দেশে তাঁর নাম রাখা হয় হাসান যার অর্থ অসাধারণ সুন্দর বা উৎকৃষ্ট। তিনি ছিলেন বিশ্বনবীর (সা) রহমতের অব্যাহত ফল্গু ধারার অংশ। বিশ্বনবী (সা)’র পবিত্র আহলে বাইতের সদস্যদের বলা হয় জীবন্ত কুরআন বা সরব কুরআন (যে কুরআন কথা বলে)। কারণ, তাঁদের কথাবার্তা ও আচার-আচরণে প্রতিফলিত হত কুরআনের মহান শিক্ষা। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) ইমাম হাসান ও হুসাইনকে বেহেশতি যুবকদের সর্দার বলে উল্লেখ করেছেন এবং এও বলেছেন যে, তাঁরা দু’জনই মুসলমানদের ইমাম তা ক্ষমতায় থাকুক বা না থাকুক কিংবা বিপ্লব করুক বা না করুক। মুসলিম বিশ্বের যোগ্য ইমাম হিসেবে তাঁকে গড়ে তুলেছিলেন স্বয়ং বিশ্বনবী (সা.), আমিরুল মু’মিনিন আলী (আ.) ও হযরত ফাতিমা জাহরা (সা.)।

imgur

এই মহান ইমাম মুয়াবিয়ার ষড়যন্ত্রে শহীদ হন হিজরি ৫০ সনে। তিনি সমাহিত হন মদীনার জান্নাতুল বাকিতে। (বলা হয় বিশ্বনবী-সা.’র কবরের পাশেই সমাহিত হতে চেয়েছিলেন এই মহান ইমাম, কিন্তু বিশেষ মহলের বাধার কারণে তা সম্ভব হয়নি) মহান আল্লাহ বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ(সা.)’র পবিত্র আহলে বাইতকে পবিত্র তথা নিষ্পাপ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন (কুরআন, আহজাব ৩৩:৩৩) যে ঘটনার পর সেই ঘটনায় উপস্থিত ছিলেন হাসান (আ.)। ঘটনাটি হল, মহানবী (সা.) একদিন আলী (আ.), ফাতিমা (সা.আ.), হাসান (আ.)ও হুসাইন (আ.)-কে নিজের ঢিলেঢালা আলখাল্লা বা চাদরের নিচে স্থান দিয়ে তাঁদের জন্য বিশেষ মুনাজাত করেছিলেন। এ সময় রাসূল (সা.)’র স্ত্রীদের কেউ কেউ আসতে চাইলে রাসূল তাঁদেরকে নিজ আলখাল্লা বা চাদরের নিচে আসার অনুমতি দেননি। এ ছাড়াও নাজরানের খ্রিস্টানদের সঙ্গে বিতর্ক ও মুবাহিলার ঘটনার (যারা মিথ্যাবাদী হবে তাদের এবং তাদের পরিবারের ওপর আল্লাহর অভিশাপ দেয়ার চ্যালেঞ্জ) সময়ও আল্লাহর নির্দেশে নবী-পরিবার বা আহলে বাইতের সদস্য হিসেবে সেই পবিত্র পাঁচজনের একজন হিসেবে আবারও উপস্থিত ছিলেন হাসান (আ.)। এ বিষয়ে নাজিল হয়েছিল সুরা নিসার ৬১ নম্বর আয়াত। ইমাম হাসান (আ.) পিতা আলী (আ.)’র শাহাদতের পর মুসলিম বিশ্বের খলিফা হন। কিন্তু মাত্র ছয় মাস পর মুয়াবিয়ার নেতৃত্বে ব্যাপক বিদ্রোহ ও নিজের সমর্থকদের মধ্যে মুনাফিকদের দৌরাত্ম্য প্রবল হয়ে ওঠার কারণে রাজনৈতিক ক্ষমতা মুয়াবিয়ার হাতে হস্তান্তর করতে বাধ্য হন।

imgur

এ সময় স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুযায়ী খলিফা পদবী ব্যবহারের অধিকার মুয়াবিয়ার ছিল না। অন্য কথায় সমর্থকদের নিষ্ক্রিয়তা ও আদর্শিক বিচ্যুতিসহ নানা দিক থেকে পরিস্থিতি অত্যন্ত প্রতিকূল থাকায় ইমাম হাসান মুজতবা (আ.) মুয়াবিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ-বিরতি চুক্তি স্বাক্ষর করতে বাধ্য হয়েছিলেন। কারণ, ইমামের প্রধান সেনাপতিসহ অনেকেই ভেতরে ভেতরে মুয়াবিয়ার কাছে বিক্রি হয়ে গিয়েছিল। এ সময় তিনি মুয়াবিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ অব্যাহত রাখলে ইসলাম পৃথিবীর বুক থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেত এবং ইসলামের প্রকাশ্য শত্রু সুযোগ-সন্ধানী রোমানরা সিরিয়া ও বায়তুল মোকাদ্দাস দখল করে নিত। এ ছাড়াও এ চুক্তির ফলে মুয়াবিয়ার প্রকৃত চেহারা জনগণের কাছে তুলে ধরা সহজ হয়েছিল। ইমাম হাসান (আ.)’র অনেক মু’জিজা বা অলৌকিক ঘটনা রয়েছে। এইসব মু’জিজার মধ্যে আমরা কেবল দু’টি মু’জিজার ঘটনা এখানে তুলে ধরব। এক : আবু জাফর (আ.) থেকে বর্ণিত হয়েছে: একদল লোক ইমাম হাসান (আ.)’র কাছে এসে বলে: আমরা আপনার বাবার মু’জিজাগুলো দেখেছি, এইসব মু’জিজা আপনার কাছেও দেখতে চাই। ইমাম হাসান (আ.) বললেন, যদি দেখাই তাহলে তাঁর প্রতি তথা আলী (আ.)’র প্রতি কি ঈমান আনবেন? তারা বলল: জি, আল্লাহর কসম তাঁর প্রতি ঈমান আনব। ইমাম বললেন: আপনারা কি আমার বাবাকে চেনেন? সবাই বলল: হ্যাঁ, চিনি। ইমাম তাদের চোখের বা দৃষ্টি থেকে পর্দা তুলে নিলেন এবং সবাই দেখল যে স্বয়ং হযরত আলী (আ.) দাঁড়িয়ে আছেন। এরপর ইমাম হাসান (আ.) বললেন: আপনারা কি তাঁকে চেনেন? সবাই বলল: ইনি আমিরুল মু’মিনিন আলী (আ.) এবং আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি যে আপনি আল্লাহর ওলি বা বন্ধু এবং আলীর পর আপনিই প্রকৃত ইমাম ও নেতা। আপনি আমাদেরকে আপনার পিতা আলী (আ.)’র মৃত্যুর পরও তাঁকে দেখিয়েছেন যেমনটি আপনার বাবা রাসূল (সা.)’র মৃত্যুর পরও মসজিদে কুবায় আবুবকরের কাছে রাসূল (সা.)-কে দেখিয়েছিলেন। এরপর ইমাম বললেন: তোমাদের ওপর আক্ষেপ! তোমরা কি শোনোনি মহান আল্লাহ বলেছেন: و لا تقولوا لمن یقتل فی سبیل الله امواتا بل أحیاء و لکن لا تشعرون যারা আল্লাহর পথে নিহত হয় তাদেরকে মৃত বলো না, বরং তারা জীবিত, কিন্তু তোমরা তা অনুধাবন কর না। যারা আল্লাহর পথে নিহত হয় তাদের সম্পর্কে যদি এই আয়াত নাজিল হয়ে থাকে তাহলে আমাদের সম্পর্কে তোমরা কি মনে কর? লোকেরা বলল: হে আল্লাহর রাসূলের সন্তান! আমরা আপনার কথা ও আচরণের প্রতি ঈমান আনছি এবং আপনার কথা ও আচরণকে সত্য বলে স্বীকৃতি দিচ্ছি। (সূত্র: বিহারুল আনোয়ার)

imgur

দুই : কোনো এক ওমরাহ হজের সফরের সময় ইমাম হাসান (আ.)’র সঙ্গে ছিলো যুবাইর বিন আলআওয়ামের কোনো এক পুত্র। সফরের এক পর্যায়ে তারা একটি স্থানে থামেন। সেখানে কয়েকটি শুকিয়ে যাওয়া খেজুর গাছ ছিল। ওই ব্যক্তি বলল: এই খেজুর গাছে যদি খেজুর থাকতো তাহলে তা পেড়ে খেতাম। ইমাম হাসান (আ.) বললেন: তোমার কি খুরমা খেজুর খেতে ইচ্ছে হচ্ছে? লোকটি বলল: হ্যাঁ। ইমাম আকাশের দিকে হাত তুলে দোয়া করলেন। সঙ্গে সঙ্গে ওই খেজুর গাছটি সবুজ হয়ে যায় এবং তাতে খেজুরও দেখা যায়। লোকটি গাছে উঠে খেজুর পেড়ে খায়। এ সময় তাদের সফরসঙ্গী এক উট-চালক বলে ওঠে: এ তো দেখছি জাদু। ইমাম হাসান (আ.) বললেন: তোমার প্রতি আক্ষেপ! এটা জাদু নয় বরং নবীর (সা.) সন্তানের দোয়া যা কবুল হয়। সমস্ত মহৎ গুণের অধিকারী ইমাম হাসান (আ.) জীবনে অন্তত: দুবার তাঁর ব্যক্তিগত সব সম্পদ দান করে দিয়েছেন এবং বেশ কয়েকবার অর্ধেক বা তারও বেশি সম্পদ দান করে দিয়েছিলেন। তিনি পায়ে হেটে এবং কখনও নগ্ন পায়ে ২৫ বার মদিনা থেকে মক্কায় গিয়ে হজ্ব বা ওমরাহ করেছেন। ইমাম হাসান (আ.) বলেছেন, সব জিনিসের প্রতি লোভই হচ্ছে দারিদ্র আর অল্পে তুষ্টি হচ্ছে প্রাচুর্য বা সম্পদের অধিকারী হওয়া। হযরত ইমাম হাসান মুজতাবা (আ.)’র পবিত্র জন্ম-বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে জানাচ্ছি প্রাণঢালা অভিনন্দন ও মুবারকবাদ এবং এই মহান ইমামের শানে পেশ করছি অসংখ্য সালাম ও দরুদ।

One Reply to “ওমরাহ হজ শেষে ইমাম হাসান (আ.) বাড়ি ফিরছিলেন (অলৌকিক ইসলামীক ঘটনা)”

  1. দরূদ ও সালাম শুধুমাত্র মহানবী এব! সালাম অন্যান্য নবী ও রাসুলগনের বেলায় ব্যবহার করা হয় ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *